আন্তর্জাতিক

শনিবার, ০৫ জানুয়ারী, ২০১৯ (১২:২৬)

খাসোগি হত্যায় সৌদির বক্তব্য এখনো বিশ্বাসযোগ্য নয়: যুক্তরাষ্ট্র

সাংবাদিক জামাল খাসোগি

সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যায় সৌদি আরবের বক্তব্যকে এখনো বিশ্বাসযোগ্য মনে করছে না যুক্তরাষ্ট্র।

জানা গেছে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও আগামী সপ্তাহে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্য সফরের সময় খাসোগি হত্যার ব্যাপারে জবাবদিহিমূলক ও বিশ্বাসযোগ্য তদন্তের ওপর জোর দেবেন।

শনিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, গতকাল শুক্রবার এক মার্কিন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, খাসোগি হত্যার ব্যাপারে সৌদি আরব সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের বিচার শুরু করলেও যুক্তরাষ্ট্র এ ব্যাপারে দেয়া সৌদি বক্তব্য বিশ্বাস করে না।

যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, এই ইস্যুতে বিশ্বাসযোগ্যতার চৌকাঠে টোকাও দিতে পারেনি সৌদি আরব বলে জানান তিনি।

মাইক পম্পেওর সফর সম্পর্কে জানাতে গিয়ে মার্কিন ওই কর্মকর্তা আরও জানান, পররাষ্ট্রমন্ত্রী জবাবদিহি ও বিশ্বাসযোগ্যতা—এ দুটি বিষয়ে সৌদি আরবকে অব্যাহতভাবে চাপ দিয়ে আসছেন। আসলে কী ঘটেছে, সে সম্পর্কে সৌদি আরবের বিশ্বাসযোগ্য ব্যাখ্যা দেওয়া উচিত।

তিনি বলেন, আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে আমি মনে করি না, সৌদি আরব যে ব্যাখ্যা দিচ্ছে বা যে আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে, তা এখন পর্যন্ত বিশ্বাসযোগ্যতা ও জবাবদিহির চৌকাঠে টোকা দিতে পেরেছে।

আগামী ৮ থেকে ১৫ জানুয়ারির এ সফরে পম্পেও সৌদি আরবের পাশাপাশি জর্ডান, মিসর, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান ও কুয়েত সফর করবেন। মধ্যপ্রাচ্যের নেতাদের সঙ্গে আলোচনায় ইরান, সিরিয়া ও অন্যান্য আঞ্চলিক ইস্যুর পাশাপাশি ইয়েমেন যুদ্ধ নিয়ে কথা বলবেন তিনি।

নিজ দেশের গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদন ও সিনেটে যুবরাজ মোহাম্মদকে এ হত্যার জন্য নিন্দা প্রকাশ করা সত্ত্বেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এ ব্যাপারে উদাসীন। তিনি যুবরাজ মোহাম্মদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখেছেন।

গত বৃহস্পতিবার সৌদি আদালত খাসোগি হত্যা মামলার প্রথম শুনানি করেন। সৌদি কৌঁসুলিরা সন্দেহভাজন ১১ জনের মধ্যে পাঁচজনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার আবেদন করেন।

তবে গতকাল জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক হাইকমিশন এ বিচারকে ‘যথেষ্ট নয়’ বলে মন্তব্য করেছে।

গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেট ভবনের ভেতরে সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে (৫৯) হত্যা করা হয়। বিয়েসংক্রান্ত নথিপত্র আনার জন্য তিনি কনস্যুলেট ভবনে গিয়েছিলেন। সৌদি আরব থেকে এসে ১৫ জনের একটি দল তাকে হত্যা করে। তার লাশের সন্ধান এখনো পাওয়া যায়নি। খাসোগিকে হত্যার নির্দেশদাতা হিসেবে সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের নাম উঠে এসেছে।

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাও মনে করে, যুবরাজ মোহাম্মদের নির্দেশেই খাসোগিকে হত্যা করা হয়েছে। যদিও সৌদি আরব শুরু থেকেই ওই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। সৌদি আরব শুরুতে কনস্যুলেট ভবনে খাসোগি হত্যার বিষয়টিও অস্বীকার করে। তবে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে তা স্বীকার করতে বাধ্য হয় এবং সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের বিচার শুরু করে। খাসোগি ছিলেন যুবরাজ মোহাম্মদের কড়া সমালোচক।

২০১৭ সালের জুনে যুবরাজ মোহাম্মদ ক্রাউন প্রিন্স হওয়ার পর খাসোগি সেপ্টেম্বরে সৌদি আরব থেকে পালিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে স্বেচ্ছানির্বাসনে চলে যান। সেখানে ওয়াশিংটন পোস্টে তিনি কলাম লিখতেন।

ইউটিউবে দেশ টেলিভিশনের জনপ্রিয় সব নাটক ও অনুষ্ঠান দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Desh TV YouTube Channel

এছাড়াও রয়েছে

ভারত না গিয়ে রিয়াদ ফিরলেন যুবরাজ

জরুরি অবস্থা: ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ১৬ অঙ্গরাজ্যের মামলা

ব্রিটেনের প্রধান বিরোধী দল লেবার পার্টির ৭ এমপির দলত্যাগ

পশ্চিমা দেশগুলোর কড়া সমালোচনার মুখে চীনা প্রযুক্তি

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিলে তার জবাব পাবে ভারত: ইমরান

আইএস যোদ্ধাদের ফিরিয়ে নিতে ইউরোপীয় দেশগুলোকে আহ্বান ট্রাম্পের

বেলুচিস্তানে সেনাদের গাড়িবহরে আত্মঘাতী হামলা, নিহত ৯

উত্তপ্ত কাশ্মির: আবারো হামলায় পাঁচ ভারতীয় সেনা নিহত

সর্বশেষ খবর

ঐক্যফ্রন্টের গণশুনানি নয়, হবে গণতামাশা: কাদের

বঙ্গবন্ধুর ছবি না থাকায় ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস’ বইটি সরানোর নির্দেশ

বাংলাদেশের শ্রমিক নিয়োগে আমিরাতের ইতিবাচক সাড়া

বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী লুলু-এনএমসি গ্রুপ